1. admin@pratibaderkantho.com : admin :
  2. badhsa85ja@gmail.com : badhsa :
  3. tvtista2@gmail.com : manik :
ঢাকার বস্তিতে করোনা কেন কম? - প্রতিবাদের কন্ঠ
শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
বাঘায় মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ রাখায় ৩ ফার্মেসীর মালিককে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু উপজেলা বাসীদের সচেতন করতে পথে,পথে ঘুরছে ফিরছে হরিণাকুণ্ডুর এসিল্যান্ড জলঢাকায় শীতার্ত মানুষের পাশে ব্যারিষ্টার তুরিন আফরোজ ফাউন্ডেশন জলঢাকায় গৃহহীন ১৫০টি পরিবারের ঘর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন। বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফা’র রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন নীলফামারীতে ট্রেনে কাটা পড়ে ইপিজেডের ৪ মহিলা শ্রমিক নিহত,আহত-৫ জলঢাকায় সমলয় পদ্ধতিতে যান্ত্রিক ভাবে বোরো রোপনের উদ্ধোধন ! বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফা’র মৃত্যুতে – উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীনের শোক ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার বীর মুক্তযোদ্ধার রাষ্টীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন ডোমারে চারশত শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

ঢাকার বস্তিতে করোনা কেন কম?

অনলাইন ডেস্ক |
  • প্রকাশকাল : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০
  • ১৯২

রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন বস্তিতে বসবাস করা মানুষদের মধ্য এখন পর্যন্ত ৬ শতাংশের নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) ধরা পড়েছে। এর কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা তাদের জীবন-যাপনের ধরনের কথা উল্লেখ করছেন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) এবং আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা সংস্থার (আইসিডিডিআর,বি’) যৌথ জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে।

তথ্য অনুযায়ী রাজধানীর মোট জনসংখ্যার ৯ শতাংশ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। সার্বিকভাবে এ হার ৯ শতাংশ হলেও বস্তিতে এ হার আরও তিন শতাংশ কম।

জরিপে রাজধানীর ৬টি বস্তি এলাকাসহ বিভিন্ন বাড়ি পরিদর্শন করা হয়। পরিদর্শনের সময় যেকোনো একটি বাড়ির চারজনের মধ্যে একজনের শরীরে পরিদর্শনের দিন কিংবা পরবর্তীতে ৭ দিনের মধ্যে করোনার চারটি উপসর্গের একটি পাওয়া গেলে তাকে উপসর্গের রোগী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

একইভাবে রাজধানীর ছয়টি বস্তি এলাকাসহ বিভিন্ন বাড়ি পরিদর্শনের সময় যেকোনো একটি বাড়ির চারজনের মধ্যে একজনের পরিদর্শনের দিন কিংবা পরবর্তীতে ৭ দিনের মধ্যে করোনার চারটি উপসর্গের একটিও না পাওয়া গেলে তাকে উপসর্গবিহীন রোগী ধরা হয়। মোট ৩ হাজার ২২৭টি বাড়ি পরিদর্শনকালে ২১১ জন করোনা উপসর্গের রোগী পাওয়া যায়।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং গবেষক লেলিন চৌধুরী এ বিষয়ে ভারতের বেসরকারি সংবাদ সংস্থা আইএএনএস-কে শনিবার বলেন, ‘তাদের (বস্তিবাসী) কারোরই মাস্ক নেই। কিন্তু কম আক্রান্ত। এ কারণেই ঢাকায় কভিড-১৯ রোগটিকে এখনো বড়লোকের রোগ বলা হচ্ছে।’

‘এসব মানুষেরা জামা কম পরেন, জুতা ব্যবহার করেন না, অধিকাংশ সময় সরাসরি সূর্য এবং প্রকৃতির কাছে থাকেন, তাদের ইমিউনিটি ভালো। যেসব মানুষ এসির ভেতর থাকেন, সূর্যের আলো কম লাগান, সংরক্ষিত খাবার বেশি খান তাদের ইমিউনিটি কম।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
error: Content is protected !!